আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ পাচ্ছেন প্রিয়া সাহা

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগ করায় প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে দুইটি রাষ্ট্রদ্রোহের মামলার আবেদন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন যে, এ বিষয়ে তড়িঘড়ি সিদ্ধান্ত না নিয়ে আগে প্রিয়া সাহার বক্তব্য শোনা হবে যে, আসলে তিনি কি বলতে চেয়েছেন।

ইতিমধ্যে সুপ্রিম কোর্টের দুইজন আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক এবং ঢাকা আইনজীবী সমিতির সদস্য ইব্রাহিম খলিল রবিবার সকালে ঢাকার আদালতে আলাদা দুইটি মামলা করার আবেদন করেন। তাদের অভিযোগ, তিনি এই মিথ্যা তথ্য প্রচার করেছেন যে,বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। উক্ত অভিযোগ এর মাধ্যমে ধর্মীয় ভেদাভেদ তৈরি, দেশকে অস্থিতিশীল এবং বিদেশি রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ করার পাঁয়তারা করা হচ্ছে, যা রাষ্ট্রদ্রোহের সামিল বলে অভিযোগ করা হয়। তবে শুনানির পরে সিদ্ধান্ত হবে এই দুটি মামলাকে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হিসেবে গ্রহণ না করার ব্যাপারে।

রবিবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেছেন, ”অনুমতি ছাড়া রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করা যায় না। তাছাড়া এ ব্যাপারে যিনি অভিযোগ করেছেন, সেই অভিযোগের ব্যাপারে তার বক্তব্যটা আমাদের জানা দরকার। তার আগে কোন প্রকার পদক্ষেপ নিতে আমরা যাবো না। ‘তিনি আরো বলেন, ”প্রধানমন্ত্রী আমাকে বার্তা দিয়েছেন যে, এই বিষয়ে তড়িঘড়ি করে কোন সিদ্ধান্ত নেয়ার দরকার নেই। আগে তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে হবে। তিনি কি বলতে চেয়েছেন সেটা জানতে হবে। তার দেশে ফিরতেও কোন বাধা নেই। ”

আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, প্রিয়া সাহা দেশে ফিরলে তাকে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি বিবৃতিতে বলা হয় যে, বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণের উদ্দেশ্যেই প্রিয়া সাহা এই ধরণের বানোয়াট ও কল্পিত অভিযোগ করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *