স্ত্রী ও কন্যা সন্তান নিয়ে বাঁচার আকুতি,পঙ্গু রন্জয় সাহার

গত ৮ই ফেব্রুয়ারী মাদারীপুর শহরস্হ ইটেরপুল মহাসড়কে সন্জয় সাহা(৩৫) নামক এক যুবকের দু’পায়ের উপর দিয়ে একটি বালুভর্তি ট্রাক চালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলেই একটি পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় তার,এবং অন্য পায়েও মারাত্মক প্রকারে জখম হয়।পরে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে তার একটি পা কেটে ফেলে এবং অন্যটি পা সম্পুর্ণ প্যালাস্টার করেন ডাক্তার।বর্তমানে হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে মাদারীপুরের মস্তফাপুর বড় মেহের গ্রামের রণজয় সাহা(৩৫)। স্ত্রী আর এক মাত্র মেয়েকে নিয়ে ঘোর অন্ধকার দেখছেন পঙ্গু রন্জয়ের পরিবার।গত শনিবার ইটেরপুল বাজার চলাকালীন মুর্হুতের মধ্যেই শতশত লোকের সম্মুখে রন্জয় সাহার একটি পা প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলে আশপাশের লোকজন মুর্মুষ অবস্থায় উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায় তাকে।সেখান থেকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর অবস্থার অবনতি হলে ওই দিনই ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসরা তার একটি পা পুরো কেটে ফেলেন,অন্য পায়ে প্যালাস্টার করেন। তবে সেই পা’টিও কেটে ফেলার আশঙ্কা রয়েছে। বর্তমানে তিনি ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন।

এ অবস্থায় রণজয় সাহার স্ত্রী সমাপ্তি সাহা ও তিন বছরের এক মাত্র মেয়ে রাত্রি সাহাকে নিয়ে ঘোর অন্ধকার দেখছে পরিবারটি। কিভাবে চিকিৎসার খরচ যোগাবে আর পরিবারকে নিয়েই কি করে চলবেন তারা। এদিকে পঙ্গু হাসপাতালে জীবন মরণের সন্ধিক্ষণে রয়েছেন রন্জয় সাহা(৩৫)। 

রণজয় সাহার স্ত্রী সমাপ্তি সাহা বলেন, “শশুর আর স্বামীর অল্প আয়ে আমাদের চলে যাচ্ছিল।কিছুদিন আগে আমার শশুর মারা যান ‘আমার স্বামী মস্তফাপুর বাজারে ‘তারক মেডিকেল কর্নার’ নামে একটি ফার্মেসীর দোকান করে চলছিল।এখন তার চিকিৎসার খচর আর সংসার চালাতে খুবই কষ্ট হচ্ছে।ঐ দিন রাস্হার পাশে দাড়িয়ে থাকা অবস্থায় হঠাৎই একটি বালু বাহী ট্রাক আমার স্বামীর দু পায়ের উপর দিয়ে চালিয়ে যান।সাথে সাথে আমার স্বামী, জলজ্যান্ত স্বাভাবিক মানুষটির একটি পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।পরে ট্রাকটিকে স্থানীয়রা আটক করে সদর থানায় দিয়েছে। ট্রাকের মালিক ও চালকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার মতো অবস্থাও এখন আমাদের নেই। এই অবস্হায় আমরা খুব অসহায় তাই প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি”

মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সওগাতুল আলম জানান, ‘‘স্থানীয় লোকজন ট্রাকটি ঘিরে রাখলে পুলিশ গিয়ে ট্রাকটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এখনো ট্রাকটি থানা হেফাজতে রয়েছে। যদি আহতের পরিবার মামলা করতে চায়, তাহলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’’

শাহাদাত হোসেন জুয়েল
মাদারীপুর জেলা প্রতিনিধি

One thought on “স্ত্রী ও কন্যা সন্তান নিয়ে বাঁচার আকুতি,পঙ্গু রন্জয় সাহার

  • February 16, 2020 at 5:39 am
    Permalink

    But Ami dekhlam bike chalonor shomoy kukur r bike tarpor track er sathe accident Holo?

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *