জাপানি ওষুধ ‘পুরোপুরি কার্যকর’ করোনা রুখতে: চীন

মঙ্গলবার চীনের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ঝাং জিনমিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটির উচ্চমানের সুরক্ষা রয়েছে এবং এটি চিকিৎসার ক্ষেত্রে স্পষ্টভাবে কার্যকর। গিনির ইবোলা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য ওষুধটি অতীতে ব্যবহার করা হয়েছিল।

জাপানি সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী চীনা চিকিৎসা কর্তৃপক্ষ কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় ‘ফ্যাভিপিরাভির’ নামে একটি অ্যান্টিভাইরাল ড্রাগ ব্যবহার করে ফল পেয়েছেন। চীনা কর্তৃপক্ষের দাবির বিষয়ে এর উদ্ভাবক এখনও কোন মন্তব্য করেননি। বাজারে এই ড্রাগটির নাম অ্যাভিগান এবং ফুজিফিল্ম তোয়ামা কেমিক্যাল নামে একটি জাপানী ফুজিফিল্ম সহায়ক সংস্থা এ ড্রাগটির উদ্ভব ঘটায়।

খবরে আরো জানা গেছে, চীনের উহানে ২৪০ রোগীর এবং শেনজেনে ৮০ জন রোগীর সমন্বয়ে একটি পরীক্ষার অংশ হিসাবে যারা মাত্র চারদিন পর সংক্রমিত হয়েছিল তাদের কোভিড-১৯ পরীক্ষায় নেগেটিভ পাওয়া যায়।

দ্য গার্ডিয়ানের মতে, চিকিৎসা ছাড়াই মধ্যম সময়টি ছিল ১১ দিনের।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্র উল্লেখ করে জাপানের গণমাধ্যম জানায়, ‘আমরা অ্যাভিগান ৭০ থেকে ৮০ জনকে দিয়েছি, তবে ভাইরাসটি ইতিমধ্যে বহুগুণ বেড়ে গেলে এটি কার্যকরভাবে কাজ করে বলে মনে হয় না’।

ওষুধে ৯১ শতাংশ রোগীর মধ্যে ফুসফুসের অবস্থার উন্নতি করতে দেখা গেছে, মাত্র ৬২ শতাংশে ওষুধ ছাড়াই ফুসফুসের অবস্থার উন্নতি হয়েছে। তবে এটি মারাত্মক ভাইরাসের বিস্তার বন্ধে নিখুঁত।
সূত্র : গার্ডিয়ান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *